এশিয়ার প্রাচীনতম বাংলা সংবাদপত্র প্রথম প্রকাশ ১৯৩০

প্রিন্ট রেজি নং- চ ৩২

১২ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

সিলেট-ছাতক রুটে ট্রেন পূনরায় চালুর দাবিতে কল্যাণ সংস্থার স্মারকলিপি প্রদান

Daily Jugabheri
প্রকাশিত ১০ জুলাই, বুধবার, ২০২৪ ১৯:৩৩:৩৮
সিলেট-ছাতক রুটে ট্রেন পূনরায় চালুর দাবিতে কল্যাণ সংস্থার স্মারকলিপি প্রদান

যুগভেরী ডেস্ক ::: সিলেট কল্যাণ সংস্থা, সিকস’র অঙ্গ সংগঠন সিলেট বিভাগ যুব কল্যাণ সংস্থা ও সিলেট প্রবাসী কল্যাণ সংস্থার যৌথ উদ্যোগে ১০ জুলাই ২০২৪ বুধবার বেলা ১১.৩০ ঘটিকায় সিলেট-ছাতক রুটে ট্রেন পূনরায় চালুর দাবিতে মাননীয় রেলমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ও সুনামগঞ্জ-৫টি আসনের সংসদ সদস্যদের বরাবরে (মাধ্যমঃ জেলা প্রশাসক, সিলেট) স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে জাতীয় যুব দিবস-২০১০ এ জাতীয় যুব পুরস্কার শ্রেষ্ঠ যুব সংগঠক পদকপ্রাপ্ত সংস্থাগুলোর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সিলেট কল্যাণ সংস্থার কার্যকরী কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ এহছানুল হক তাহেরের নেতৃত্বে স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ জেলার বাসিন্দা সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির সভাপতি আলহাজ্জ মুখতার আহমেদ তালুকদার, সহ-সভাপতি আব্দুস সোবহান আজাদ, সুনামগঞ্জ জেলা কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান, সিলেট জেলার বাসিন্দা সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুসলেহ উদ্দিন চৌধুরী মিলাদ, প্রচার সম্পাদক মোঃ ফুজায়েল আহমদ, সিলেট জেলা কমিটির সভাপতি হাজী মোঃ আশরাফ উদ্দিন, সহ-সভাপতি তোফায়েল আহমদ, সিলেট মহানগর কমিটির প্রচার সম্পাদক দিপক কুমার মোদক বিলু ও সমাজ সচেতন নাগরিকদের মধ্য থেকে মিল্লাত আহমদ।

স্মারকলিপির বিষয়বস্তুঃ ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় প্রায় ৭ লাখ মানুষ বসবাস করছে। সিলটের সাথে তাঁদের চলাচলের রাস্তা হচ্ছে সড়কপথ, নৌপথ ও রেলপথ। তবে তাঁরা সবচেয়ে বেশি যাতায়াত করেন সড়ক ও রেলপথে। বর্তমানে সড়ক পথে নিয়মিত যাতায়াত করেন এই দুই উপজেলার বাসিন্দারা। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক-সিলেট রুটে প্রায় সাড়ে চার বছর ধরে ট্রেন চলাচল বন্ধ। সকল রেলপথে ট্রেন চলাচল করলেও এই রুটে ট্রেন চলাচল শুরু হয়নি। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ট্রেনে যাতায়াতকারী এ অঞ্চলের যাত্রী সাধারণ। ছাতক শিল্পনগরী উপজেলা হিসেবে বিখ্যাত। ব্রিটিশ আমল থেকে এই উপজেলায় ব্যবসা-বাণিজ্য চলে আসছে। এ হিসেবে ১৯৫৪ সালে সিলেট-ছাতক ৩৫ কিলোমিটার রেলপথ স্থাপিত হয়। ছাতকবাজার রেলস্টেশন থেকে প্রতিদিন চারটি ট্রেন সিলেটে যাতায়াত করতো। এসব ট্রেনে সিমেন্ট, পাথর, চুনাপাথর, তেজপাতা ও কমলাসহ বিভিন্ন ধরনের কাঁচামাল কম খরচে পরিবহন করা হতো। প্রাচীনতম ছাতক রেলপথে ট্রেন চলাচল না করায় বিপাকে পড়েছে এই অঞ্চলের মানুষজন। ট্রেন পরিবহনে স্বল্প ভাড়ার পরিবর্তে সড়কপথে তাদের গুনতে হচ্ছে অধিক ভাড়া। সিলেট-ছাতক রুটে অল্প ভাড়ায় ট্রেনে নিরাপদে যাতায়াত করা যেত। ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় বেশি টাকা দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে সড়ক পথে। সিলেট স্টেশন থেকে ছাতক পর্যন্ত রয়েছে খাজাঞ্চি, সৎপুর ও আফজলাবাদ রেলওয়ে স্টেশন। এই রেলষ্টশনগুলোকেও আধুনিকায়ন করা প্রয়োজন। ছাতক-দোয়ারাবাজার উপজেলার সর্বস্তরের সাধারণ জনগনের কথা বিবেচনায় নিয়ে ছাতক-সিলেট রুটে ট্রেন চলাচল পূনরায় চালু করতে আপনার সুদৃষ্টি কামনা করছি। সিলেট-ছাতক রুটে পূনরায় ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা ও কার্যকর পদক্ষেপ করতে আপনার মর্জি হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে স্যোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন