এশিয়ার প্রাচীনতম বাংলা সংবাদপত্র প্রথম প্রকাশ ১৯৩০

প্রিন্ট রেজি নং- চ ৩২

১২ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

রাতে আঁধারেও পানিবন্দি  জনগণকে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন

Daily Jugabheri
প্রকাশিত ১৯ জুন, বুধবার, ২০২৪ ১৬:১৬:১৯
রাতে আঁধারেও পানিবন্দি  জনগণকে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি ::৫ দিনের ভারী বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সীমান্তবর্তী জনপদ  সিলেটের  গোয়াইনঘাট উপজেলা তলিয়ে গেছে। গোয়াইনঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের “ওয়েষ্ট জৈন্তা হিলস” ও “ইষ্ট খাসি হিলস” জেলায় আজ ১৯ জুন ৩২৩ মিঃমিঃও আগামীকাল ২০ জুন ৭২৫মিঃমিঃ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। গোয়াইন নদী (গোয়াইনঘাট পয়েন্ট) বিপদসীমার ০৯ সে:মি: উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পিয়াইন নদী (জাফলং পয়েন্ট) বিপদসীমাঃ ১৩.০০ মিটার প্রবাহমানঃ ১১.২২ মিটার সারি নদী (সারিঘাট পয়েন্ট) বিপদসীমাঃ ১২.৩৫ মিটার প্রবাহমানঃ ১২.১৪ মিটার সরকারের  পক্ষ থেকে আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রিত এবং পানি বন্দী এলাকার জনগণকে পর্যাপ্ত খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। স্থানীয় সামর্থ্যবানরাও সহায়তা করছেন। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বন্যার্তদের উদ্ধার কার্যক্রম ও ত্রাণ সহায়তা বিতরণ কার্যক্রম চলছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: তৌহিদুল ইসলাম জানান, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বার এবং ভলান্টিয়ারদের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক (২৪ ঘন্টা)  জরুরি খাদ্য সহায়তা বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। ১৩ টি ইউনিয়নে (গোয়াইনঘাটে) উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অধীনে ১৩ জন সরকারি ট্যাগ অফিসার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম সমন্বয় ও তত্ত্বাবধান করছেন। গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রায় ৩৩১ বর্গ কিঃমিঃ এলাকা এবং ২২৩টি গ্রাম  প্লাবিত। এছাড়াও প্রায় ১৫০০ হেক্টর কৃষি জমি নিমজ্জিত। বন্যায়  ১৩ টি ইউনিয়নের ২৪,৩৫০ টি পরিবার পানিবন্দি  ১,২৩,৮০০ জন লোক ক্ষতিগ্রস্থ। বর্তমানে ২২টি আশ্রয়কেন্দ্র ১৪৪০জন লোক আশ্রয় নিয়েছেন  ও ৫৩০টি গবাদিপশুর রয়েছে।

এছাড়াও আজ প্রতি ইউনিয়নে ১.৫০০ মেঃটন হারে মোট ২০.৫০০মেঃটন চাল বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে, যা আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রিত লোকজনকে অগ্রাধিকার দিয়ে বন্যাদুর্গত মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে। রাত্রিকালীন সময়ে  গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পানবিন্দী হাওর এলাকায় বন্যার্তদের জন্য খাদ্য সহায়তা বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। রাত্রিকালীন খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেন

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: তৌহিদুল ইসলাম,  সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সাঈদুল ইসলাম, গোয়াইনঘাট থানার ওসি রফিকুল ইসলাম ,সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য সুবাস দাশ এবং স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এর পাশাপাশি  ৩৩৩ ও ৯৯৯  হেল্পলাইনে প্রাপ্ত কলের ভিত্তিতে  প্রশাসনের উদ্যোগে বন্যায় পানিবন্ধী জনগণকে খাবার ও জরুরি সামগ্রী (পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, ঔষধ, শিশু খাদ্য, গো-খাদ্য) পৌঁছে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন,গোয়াইনঘাটের উদ্যোগে পরিচালিত জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় তরুণ-যুবকদের অংশগ্রহণে সংগঠিত স্মার্ট কুইক রেস্পন্স ভলান্টিয়ার টিম কাজ করছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে স্যোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন