এশিয়ার প্রাচীনতম বাংলা সংবাদপত্র প্রথম প্রকাশ ১৯৩০

প্রিন্ট রেজি নং- চ ৩২

১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

গোয়াইনঘাটে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে ১৫৮ গ্রাম,

Daily Jugabheri
প্রকাশিত ১৮ জুন, মঙ্গলবার, ২০২৪ ১০:৪২:৫৩
গোয়াইনঘাটে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে ১৫৮ গ্রাম,

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়াইনঘাট ;:  টানা ৫দিনের ভারী বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সীমান্তবর্তী জনপদ  সিলেটের  গোয়াইনঘাট উপজেলায় তলিয়ে গেছে ১৫৮টি গ্রাম, প্রায় ২৬৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা। সিলেটের সদরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিছিন্ন।

মঙ্গলবার (১৮জুন) সকালে গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী আকস্মিক বন্যায় গোয়াইনঘাট উপজেলার ১৩ টি  ইউনিয়নের ৩১৩টি গ্রামের মধ্যে ১৫৮টি গ্রামের মানুষ পানিবন্ধি রয়েছেন। বর্তমানে গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রায় ২৬৮ বর্গ কিঃমিঃ এলাকা গ্রাম প্লাবিত।  প্রায় ৭০০ হেক্টর কৃষি জমি বন্যার পানিতে  নিমজ্জিত রয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যা ৬ টায় গোয়াইন নদী (গোয়াইনঘাট পয়েন্ট) বিপদসীমাঃ ১০.৮২ মিটার, প্রবাহমানঃ ১০.৬৪ মিটার। পিয়াইন নদী (জাফলং পয়েন্ট) বিপদসীমা ১৩.০০ মিটার, প্রবাহমানঃ ১১.০৯ মিটার। সারি নদী (সারিঘাট পয়েন্ট), বিপদসীমাঃ ১২.৩৫ মিটার এবং প্রবাহমানঃ ১২.১৮ মিটার। গোয়াইনঘাটে ১৩ হাজার ৬০০ টি পরিবার পানিবন্দি রয়েছেন। এছাড়া ৬৯ হাজার ৩০০ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। গোয়াইনঘাটে ৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২৫২জন মানুষ ও ৭৫টি গবাদি পশু রয়েছে।
গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তৌহিদুল ইসলাম বলেন, মেঘদূত এপস-আইএমডি)র তথ্য অনুযায়ী গোয়াইনঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের ‘ওয়েষ্ট জৈন্তা হিলস’ ও ‘ইষ্ট খাসি হিলস’ জেলায় আগামী ১৯ জুন ৬৩২মিঃমিঃ ও ২০ জুন ৬২০মিঃমিঃ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি গোয়াইনঘাট উপজেলাবাসীকে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য অনুরোধ জানান।

গতকাল ৪ টা থেকে  ঈদুল আযহাকালীন সময়ে অতিবৃষ্টিতে গোয়াইনঘাট উপজেলায় উদ্ভূত বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: তৌহিদুল ইসলাম।

সংবাদটি ভালো লাগলে স্যোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন