:: 25-9-2020  
menu
(পরীক্ষামূলক সম্প্রচার)

সমন্বিত কৃষি বনায়ন প্রযুক্তিতে আগরের উৎপাদন বৃদ্ধি সম্ভব

সুরমা ভয়েস ডেস্ক : সিলেট অঞ্চলে একক ফসলী আগর বাগানে কৃষি বনায়ন প্রযুক্তিতেসম্ভাবনাময় জলডুিব আনারস, চা, মাল্টা, বিলাতি ধনিয়া, আদা এবং হলুদ সফলভাবে উৎপাদন সম্ভব।সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিচালিত“ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার ফ্রেমওয়ার্কে খাদ্য নিরাপত্তারজন্যসিলেট অঞ্চলে বিদ্যমান কৃষিবনায়ন পদ্ধতির মূল্যায়ন” শীর্ষক গবেষণা প্রকল্প থেকে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

News image

প্রকল্পটিবিশ্বব্যাংক, ইউএসএইড ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলেরজাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প-২ এর আওতায় অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বনায়ন ও পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের তত্ত্বাবধানে গত বছরের জুলাই থেকে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলারইনাইনগরে চলমান রয়েছে।

প্রকল্পটির প্রধান গবেষক এবং কৃষিবনায়ন ও পরিবেশ বিজ্ঞানবিভাগের চেয়ারম্যান সহযোগী অধ্যাপক মোঃ সামিউল আহসান তালুকদার বলেন, এ অঞ্চলের কৃষকেরাপ্রথাগতভাবে আগর একক ভাবে চাষ কওে আসছে। এ পদ্ধতিতে মডেলে আগর বাগান থেকে আয়ের জন্যচাষীদের প্রায় ১২ বছর বা তারও বেশি সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। ফলে নতুন আগরের বাগানকরার ক্ষেত্রে চাষীদের মধ্যে অনীহা দেখা দিয়েছে। ফলশ্রুতিতে আগর শিল্পের কাঁচামালেরসহজলভ্যতা দিন দিন কমে যাচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে আগর বাগানে উদ্ভাবিত কৃষি বনায়ন মডেলেএকই ব্যবস্থাপনায় এ অঞ্চলের উল্লেখিত উচ্চ মূল্যেও ফসল সমূহ থেকে বছরব্যাপী ফলন পাওয়াযাবে আবার আগরের বৃদ্ধিও তরান্বিত হবে। তিনি আরও জানান, সিলেট অঞ্চলের প্রেক্ষাপটেএই মডেলটির মাঠ পর্যায়ে সম্প্রসারন খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখবে।