:: 28-9-2020  
menu
(পরীক্ষামূলক সম্প্রচার)

পদত্যাগ করেছেন টেকনোক্র্যাট ৪ মন্ত্রী

ন্যাশনাল ডেস্ক একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন সরকারের টেকনোক্র্যাট চারজন মন্ত্রী। তারা হলেন ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান এবং ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

News image

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে তারা পদত্যাগপত্র জমা দেন বলে চারজন মন্ত্রীর দপ্তরই নিশ্চিত করেছে।

সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভা বৈঠকের পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেছিলেন, টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগ করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে গণভবনে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগ করতে বলেছেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এই তথ্য জানিয়েছেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, '৭ নভেম্বরের পরে কোনো সংলাপের সুযোগ নেই এবং সংলাপের সময় বাড়ানোর প্রক্রিয়ার কোনো সুযোগ থাকছে না।'

তিনি আরও বলেন, 'এ পর্যন্ত যতগুলো সংলাপ হয়েছে এবং আগামীকাল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপের পর ৮ তারিখ দুপুর সাড়ে ১২টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংলাপের বিষয়বস্তু, সংলাপের ফলাফলসহ বর্তমান যে রাজনৈতিক বিষয়বস্তু এবং ভবিষ্যত কর্মপন্থা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন।'

মন্ত্রীদের পদত্যাগের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, 'আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে মন্ত্রিসভার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগ করতে বলেছেন। অন্যরা স্ব-পদে বহাল থাকবেন। তাদের পদত্যাগ করতে হবে না।'

যারা নির্বাচিত সংসদ সদস্য নন এবং সরকারের বিশেষ বিবেচনায় মন্ত্রিপরিষদে স্থান পেয়েছিলেন তারাই হলেন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী।

জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকের পরই তারা সবাই প্রধানন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেবেন। এর পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে যাবে তাদের পদত্যাগপত্র। সেখান থেকে আবার যাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদনের পর তার কার্যালয় থেকে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগপত্র যাবে রাষ্ট্রপতির কাছে বঙ্গভবনে। পরে মন্ত্রিপরিষদ থেকে এ ব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।